ম্যালওয়্যার কি? ম্যালওয়্যার ফোনে প্রবেশ করলে ফ্যাক্টরি রিসেট করলেও যাবে না!

Please log in or register to like posts.
News

দিন দিন স্মার্টফোনের ব্যবহার যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, নিরাপত্তা ঝুঁকিও বাড়ছে সে হারেই।বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় ও সর্বাধিক ব্যবহৃত মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম আন্ড্রয়েড। বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের তিন চতুর্থাংশই এই ওএসের দখলে।তবে প্রায়শই ব্যবহারকারীরা নানা ধরনের ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত হন। আজকে তা নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা থাকছে পাঠকদের জন্য।

কম্পিউটারের ম্যালওয়্যার কি  ?

Malware শব্দটির অর্থ Malicious Software. মানে ক্ষতিকারক কম্পিউটার প্রোগ্রাম। যে সকল প্রোগ্রাম কম্পিউটার এর ক্ষতির কারণ হয় সেগুলোকেই ম্যালওয়্যার বলে। যদিও ভাইরাস এবং অন্যান্য ম্যালওয়্যার কম্পউটারের ক্ষতিসাধনের জন্য তৈরী করা হয়। ব্যবহারকারীদের অনুমতি ছাড়া পরিকল্পিত কোনো নেটওয়ার্ক এর জায়গায় আঘাত করে কোনো তথ্য বা ডাটা হাতিয়ে নেয় বা চুরি করে এবং কম্পিউটার প্রোগ্রাম এর ক্ষতি করে ।

অনেক ক্ষেত্রে ম্যালওয়্যার এর মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ সরকারী বা কর্পোরেট তথ্য চুরি ও করা হয়ে থাকে | বিশেষত বিশ্ববাপী ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট এর ব্যবহার বাড়ার সাথে সাথে কম্পিউটারের ম্যালওয়্যার এর চর্চা ও বেড়ে চলেছে |

আক্রান্ত হয়েছেন কিনা বুঝবেন যেভাবে?

অ্যান্ড্রয়েডে ভাইরাস কিংবা ম্যালওয়্যারের  আক্রমণ হলে সাধারণ কিছু বিষয় পরিলক্ষিত হয়। যেমন : বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হওয়া, ফোন স্লো কাজ করা, অযাচিত অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল হওয়া, দ্রুত চার্জ চলে যাওয়া ইত্যাদি।

xHelper ম্যালওয়ার

গবেষকগনের মতে এই ম্যালওয়্যার অভিনব ম্যাথড ইউজ করে নিজের ছদ্মবেশ বজায় রাখে ও অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রাম গুলোকে ফাঁকি দেয়!

যখন ইউজার কোন তৃতীয়পক্ষ ওয়েবসাইট থেকে অ্যাপ ইন্সটল করে ফলে সেই অ্যাপের সাথে xHelper ম্যালওয়্যারটি ইন্সটল হয়ে যায়। এটি মূলত একটি ট্রোজান, আর এটি ইন্সটল হওয়ার পরে র‍্যান্ডম পপ-আপ দেখানো শুরু হয় ডিভাইজে। xHelper ম্যালওয়্যারের মধ্যে এমন কোন অ্যাক্টিভিটি নেই যেটার মাধ্যমে আপনার ফোনের ডাটা লস হতে পারে, বরং এই ম্যালওয়্যারটি ইউজাদের অনলাইন গেম খেলার জন্য উদ্বুদ্ধ করে সাথে আরো আলাদা আলাদা অ্যাপ/গেমস ফোনে ইন্সটল করিয়ে দেয়।

ফ্যাক্টরি রিসেট করার পরেও ম্যালওয়্যারটি কেন ডিলেট হচ্ছে না?

অ্যাপ ইন্সটল করার পরে এই ম্যালওয়্যারটি ফোনে প্রবেশ করেছিল সেটাকে আনইন্সটল করার পরেও এই ম্যালওয়্যার ফোন থেকে রিমুভ হবে না। ম্যালওয়্যারটি একবার স্টার্ট হয়ে যাওয়ার পরে নিজেকে ফরব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেসে নিয়ে যায়।

কিভাবে ম্যালওয়ার সরাবেন?

ম্যালওয়্যার হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য সাইডলোডিং অ্যাপ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। মানে আলাদা ওয়েবসাইট থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করে ইন্সটল করা যাবে না, শুধু গুগল প্লেস্টোর ইউজ করা বেস্ট।

  • ফোনের সেটিংস থেকে  ইন্সটলড অ্যাপ অপশনে গিয়ে দেখতে হবে অযাচিত কোন অ্যাপ লিস্টে আছে কিনা। থাকলে তা আন ইনস্টল করে দিতে হবে।
  • আন ইনস্টল করার অপশনটি কাজ না করলে সেটিংস থেকে ডিভাইস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অপশনে গিয়ে ‘অ্যাডমিন এক্সেস’ অপশনটি বন্ধ করে নিতে হবে। এরপর পুনরায় ইনস্টলড অ্যাপ অপশনে গিয়ে অযাচিত অ্যাপ আন ইনস্টল করে দিতে হবে।
  • কোন ব্রাউজার আক্রান্ত হলে ব্রাউজারটি আন ইনস্টল করে পুনরায় ইনস্টল করতে হবে।

কিভাবে ম্যালওয়ার বাঁচবেন?

প্লে স্টোর ব্যতীত অন্য কোন মাধ্যম থেকে অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টলের মাধ্যমেই মূলত অ্যান্ড্রয়েডে ম্যালওয়্যার আক্রমণ করে। তাই কিছু সাবধানতা অবলম্বন করা যেতে পারে।

  • সকল অ্যাপ্লিকেশন প্লেস্টোর থেকে ইনস্টল করা।
  • থার্ড পার্টি অ্যাপ্লিকেশন স্টোর কিংবা অন্য কারো ফোন থেকে শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে অ্যাপ ইনস্টল থেকে বিরত থাকা।
  • ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় চটকদার কোন বিজ্ঞাপন এড়িয়ে চলা।
  • অযাচিত কোন লিংকে ক্লিক না করা।
  • সিকিউরিটি আপডেটসহ অন্যান্য সকল আপডেট ইনস্টল করা।

আজকের জন্য এতো টুকুই যদি সময় পাই পরে আবার আরো এধরনের পোস্ট করব।ভালো লাগলে অবশ্যই ভোট এবং শেয়ার দিতে ভুলবেন না। আপনি যদি ম্যালওায়রে আক্রান্ত হয়ে থাকেন অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন এবং এভাবেই ডট কমের সাথেই থাকবেন ।

Leave a Reply