ওয়েবপেজের স্পিডের বাড়িয়ে নেওয়ার সেরা টিপস (How To speed Up my website)

Please log in or register to like posts.
News

ওয়েবসাইটের বিভিন্ন সমস্যাগুলো মধ্যে ওয়েবসাইট স্লো কাজ করা এবং লোডিং স্পিড কম হওয়া অন্যতম। বিভিন্ন কারনে এই সমস্যা গুলো হতে পারে। ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড কিভাবে বাড়ানো যায় এ ব্যাপারে আজকে আমরা আলোচনা করবো।

ওয়েবসাইটের পেজ স্পিড কি?

আপনি যখন ইন্টারনেটে বিভিন্ন প্রয়োজনে ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন, তাহলে আপিনিও নিশ্চয় এমন ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে চাইবেন, যেটা খুব দ্রুত ওপেন হয়। কারণ, খুলতে অনেক সময় নেয়, এমন ওয়েবসাইট প্রথমত বিরক্তকর, দ্বিতীয়ত ব্যান্ডউইথ খরচ বাড়িয়ে দেয়। সুতারাং কচ্চপ গতিতে চলা ওয়েবসাইটে কেউ ভিজিট করতে চাই না। আর ভিজিটর যদি ওয়েবসাইট ভিজিট না করে তাহলে, ওয়েবসাইটের জন্য যত রকম SEO করুন না কেন, কাজের কাজ কিছুই হবে না। এই কারণে সম্প্রতি গুগলের পক্ষ থেকে পেজ স্পিডকে SEO এর জন্য নতুন ফেক্টর বলে গণ্য করা হয়েছে। গুগলের মতে ৩ সেকেন্ডের মধ্যে যদি একটি ওয়েবসাইট সম্পূর্ণ লোড নিতে সক্ষম না হয়, তাহলে সেই ওয়েবসাইট ৩০% ভিজিটর হারায়।

কি কারনে ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড স্লো হয় 

  1. নিম্নমানের হোস্টিং ব্যবহার করা
  2. ওয়েবসাইট ঠিক ভাবে কনফিগার না করা
  3. ভিডিও এমবেড করা
  4. স্ক্রিপ্ট সমস্যা
  5. ইমেজ অপটিমাইজ না করা

আর অনেক কারন থাকতে পারে।

ওয়েবসাইট ঠিক ভাবে কনফিগার না করা

একজন ভিজিটর একটি ওয়েবসাইট ভিজিট করলে এই প্লাগিনস সেই সাইটের গুরুত্বপূর্ন কিছু ডাটা ভিজিটরের ব্রাউজারে অটোমেটিক সেভ করে রাখে। যার ফলে পরবর্তীতে ভিজিটর যখন আবার ওই সাইট টি ভিজিট করতে আসেন তখন তার ব্রাউজারে ওই সাইটির অনেক ডাটা আগে থেকেই সেভ থাকার কারনে ওয়েবসাইট লোড নিতে বেশি সময় প্রয়োজন হয় না।

আপনি আপনার ওয়বেসাইটের জন্য ক্যাশ প্লাগিনস ব্যবহার করে না থাকলে শীঘ্রই একটি প্লাগিনস ইন্সটল করে নিন।

এ কয়টি ওয়াডপ্রেস এর ব্যভারকারিদের জন্য জনপ্রিয় ক্যাশ প্লাগিনস। আপনি চাইলে এখান থেকে কোনো একটি প্লাগিনস আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

ওয়েবসাইটের গতি পরিক্ষা করুন

ওয়েবসাইটের কোন একটি সমস্যা সমাধান করার জন্য সর্ব প্রথম সমস্যা গুলো কি কি আগে সেটা জানা একান্ত জরুরী। অনলাইনে ওয়েব পেজের গতি নির্ণয় এবং সমস্যা গুলো দেখার জন্য অনেক ওয়েবসাইট আছে। আমি এখানে তিনটা ওয়েবসাইটের লিংক দিলাম, যেটা ব্যবহার করতে আপনার সহজ মনে হয় ব্যবহার করতে পারেন।

ইমেজ অপটিমাইজ না করা

যেকোনো ওয়েবসাইটের জন্য আইডিয়াল ছবির ফরম্যাট JPEG ফরম্যাট। কিন্তু PNG ফরম্যাটের ছবি  ওয়েবসাইটের পুরো পেজটি লোড নিতে নরমাল সময়ের থেকে বেশি সময় প্রয়োজন হয়। তাই পোষ্টে ছবি এড করার আগে ইমেজটি ভালো ভাবে অপটিমাইজ করে নিতে হবে এবং নিশ্চিত হতে হবে যে ইমেজ টি JPEG ফরম্যাটে আছে কিনা।

প্রশ্ন আসতে পারে স্টান্ডার্ড ইমেজ সাইজ কতো? সাধারনত অপটিমাইজ করা একটা ইমেজ ওয়েবসাইটে আপলোড করার জন্য 100KB এর মধ্যে হলে ভালো হয়। অর্থাৎ 100KB এর বেশি অনেকগুলি ইমেজ ওয়েব পেজ স্লো করার জন্য করান হতে পারে। তবে খেয়াল রাখতে হবে ইমেজ সাইজ ছোট করতে গিয়ে যেনো ইমেজ এর রেজুলেশন নষ্ট না হয়।

ইমেজ সাইজ ছোট করার জন্য আপনারা বিভিন্ন ইমেজ কম্প্রেশন টুল ব্যবহার করতে পারেন। নিচে এমন দুটি টুল দেয়া হলো:

 ওয়ার্ডপ্রেস ডাটাবেইজ অপ্টিমাইজ করা

ওয়ার্ডপ্রেস ডাটাবেইজ অপ্টিমাইজ করার জন্য আমার জানামতে  WP-Optimize  প্লাগিনটা অনেক ভাল। এছাড়াও  WP-DB Manager  প্লাগিনটা ভাল কাজ করে। মূলত এই প্লাগিনটা ডাটাবেইজ অপ্টিমাইজ করার জন্য ডেট সিডিউল করে রাখে।

সকল কোড ফাইল মিনিফাই করুন

আপনার ওয়েব ডিজাইন যখন শেষ করবেন, তখন কোডের মাঝে থাকা সকল স্পেস গুলোকে তুলে সব কোডকে একত্রিত করে নিবেন। কোড বলতে এইচটিএমএল, সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট সহ যত গুলো কোড আপনার ওয়েব পেজে ব্যবহার হয়েছে, সব গুলোকে মিনিফাই করে নিবেন।

আশা করি আজকের লেখাটি পড়ে আপনারা উপকৃত হয়েছেন। লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন। প্রতিদিন এমন টিপস পেতে অবশ্যই এভাবেই ডট কম ভিজিট করতে ভুলবেন না ।

Leave a Reply